Tagged: ডাল

মাংসের টিকিয়া, কম বেশী আমরা মাঝে মাঝেই খাই। তবে মাছ দিয়ে যে কত মজার টিকিয়া তৈরী করা যায় আর খেতে যে কত মজা হয় সেটাই তৈরী করে দেখাচ্ছি এই রেসিপিতে। আমি রুই মাছ দিয়ে রেসিপিটি তৈরী করেছি, তবে এই রেসিপিটি যে-কোনো দেশী বিদেশী মাছ দিয়ে তৈরী করা সম্ভব।

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে লাগছে –

  • ডাল সেদ্ধ করতে ১ চা চামুচ
    1. ছোলা বুটের ডাল ১ কাপ
    2. কাঁচা মরিচ ১০/১২ টি
    3. রসুন বাটা ১ চা চামুচ
    4. আদা বাটা ১ চা চামুচ
    5. চিমটি পরিমাণ হলুদের গুঁড়ি
    6. লবণ ১ চা চামুচ
    7. ধনে গুঁড়ি ১ চা চামুচ
    8. দারুচিনি ৫/৬ সেঃমিঃ
    9. ২ টি তেজপাতা
    10. ৩/৪ টি ছোটো এলাচ
    11. লং ৩/৪ টি
  • মাছ সেদ্ধ করতে
    1. মাছ ১ কেজি
    2. লবণ: ০.২৫ চা চামুচ
    3. হলুদের গুঁড়ি চিমটি পরিমাণ
  • টিকিয়া বানাতে
    1. পুদিনা পাতা ১০/১২ টি
    2. ১ কাপ পেঁয়াজ বেরেস্তা
    3. ১ টি ডিম
    4. ০.৫ চা চামুচ গোল মরিচের গুঁড়ি
    5. ১ চা চামুচ চিনি
    6. ১ টেবিল চামুচ লেবুর রস
    7. ১ চা চামুচ ভাজা জিরার গুঁড়ি

তৈরী করার অভিজ্ঞতা আমাদের ফেসবুক পেজে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

আমাদের দেশী খাবারের হোটেলগুলির একটা বিশেষত্ব আছে, তাদের প্রতিটা খাবারের রেসিপি ইউনিক। সেটা পরটা হোক, হালিম হোক, আর কাবাব হোক, একটার থেকে আরেকটা ভিন্ন এবং সুস্বাদু। প্রতিটি খাবারের মতো হোটেলে যে মিক্সড্ সবজিটা পরিবেশন করে, সেটাও সবকিছু থেকে ভিন্ন। আমার মনে হয়না, পৃথিবীর আর কোথাও এত সুন্দর সবজি পরিবেশন করা হয়। এই রেসিপিটার জন্য অনেক অনুরোধ ছিলো, তাই তৈরী করে ফেললাম বাংলা হোটেল স্টাইলে সবজি।

ডিমের জর্দা তৈরীর পদ্ধতি দেখি:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে যা যা লাগছে…

  1. ১ কাপ কাঁচা পেপে
  2. ১ কাপ ফুল কপি
  3. ১ কাপ গাজর
  4. ১ কাপ শসা
  5. ১ কাপ মিষ্টি কুমড়া
  6. ১ কাপ পটল
  7. ১ কাপ আলু
  8. ০.৫ কাপ ছোলা বুটের ডাল
  9. তেজ পাতা ৩ টি
  10. শুকনো মরিচ ৫ টি
  11. কাঁচা মরিচ ৫ টি
  12. আদা বাটা ১ চা চামুচ
  13. রসুন বাটা ১ চা চামুচ
  14. রসুন ১০/১২ কোয়া
  15. পেঁয়াজ কুচি
    • ০.৫ কাপ সবজিতে
    • ০.২৫ কাপ বাগারে
  16. ধনে গুঁড়ি ১ চা চামুচ
  17. জিরা গুঁড়ি ০.৫ চা চামুচ
  18. হলুদের গুঁড়ি ০.২৫ চা চামুচ
  19. ১ চা চামুচ লবণ
  20. রান্নার তেল
    • সবজিতে ০.৫ কাপ
    • বাগারে ০.২৫ কাপ
  21. পাঁচফোড়ন ১ চা চামুচ
  22. গোটা জিরা ০.৫ চা চামুচ

তৈরী করে আমাদের ফেসবুক পেজে আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে ভুলবেন না।

আমার অনেক দর্শকের একটাই প্রশ্ন ছিলো যে বাবুর্চিরা এমন কি করে যে তাদের তৈরী শামি কাবাব এত টেস্টি হয় আর আমরা যেভাবেই করে সেই টেস্ট আসেনা। আসলে বাবুর্চিরা যা করে, একসময় আমাদের মা-খালারাও তাই করতেন। কিন্তু ধীরে ধীরে আমরা ফাঁকিবাজ হয়ে শর্টকাট মারতে গিয়ে আসল বা অথেন্টিক টেস্টটা হারিয়ে ফেলেছি।

যাই হোক এখন আপনাদের অনুরোধের রেসিপি দেখাচ্ছি বাবুর্চি স্টাইলে শামি কাবাব।

শামি কাবাব রান্নার প্রণালীটি দেখি ভিডিওতে:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

বাবুর্চি স্টাইলে শামি কাবাব তৈরী করতে যা যা লেগেছে…

  1. ১ কাপ ছোলা বুটের ডাল
  2. ৫০০ গ্রাম মাংস
  3. ২ টি ডিম
  4. শুকনো মরিচ ৯/১০ টি
  5. প্রয়োজন মতো পেঁয়াজ
    1. ভাজনা মশলায় ১ কাপ পেঁয়াজ কুঁচি
    2. মাংস সেদ্ধ করতে ০.৫ কাপ
    3. পুর তৈরী করতে ৩ টেবিল চামুচ
  6. কাঁচা মরিচ কুঁচি ১ টেবিল চামুচ
  7. প্রয়োজন মতো রান্নার তেল
    1. ১ চা চামুচ ধনে
    2. ১ চা চামুচ জিরা
  8. প্রয়োজন মতো দারুচিনি
    1. ভাজনা মশলায় প্রায় ৩ সেন্টিমিটার
    2. মাংস সেদ্ধ করতে প্রায় ৪ সেন্টিমিটার
  9. প্রয়োজন মতো ছোটো এলাচ
    1. ভাজনা মশলায় ৫/৬ টি
    2. মাংস সেদ্ধ করতে ৫/৬ টি
  10. প্রয়োজন মতো কালো গোল মরিচ
    1. ভাজনা মশলায় ১ চা চামুচ
    2. মাংস সেদ্ধ করতে ১ চা চামুচ
  11. প্রয়োজন মতো লং
    1. ভাজনা মশলায় ১ চা চামুচ
    2. মাংস সেদ্ধ করতে ৫/৬ টি
  12. ধনে গুঁড়ি ০.৫ চা চামুচ
  13. ভাজা জিরার গুঁড়ি ১ চা চামুচ
  14. লবণ প্রয়োজন মতো
    1. মাংস সেদ্ধ করতে ১ চা চামুচ
    2. পুর তৈরী করতে ০.২৫ চা চামুচ
  15. চিনি প্রয়োজন মতো
    1. কাবাব মাখাতে ০.৫ চা চামুচ
    2. পুর তৈরী করতে ০.২৫ চা চামুচ
  16. পুদিনা পাতা ১০/১২ টি
  17. লেবুর রস প্রয়োজন মতো
    1. কাবাব মাখাতে ১ চা চামুচ
    2. পুর তৈরী করতে ১ চা চামুচ
  18. আদা কুঁচি ১ টেবিল চামুচ
  19. রসুন কুঁচি ১ টেবিল চামুচ
  20. তেঁজ পাতা ২ টি

গরম মশলার গুঁড়িতে যা আছে:

  1. জিরা – ১ চা চামুচ
  2. এলাচ – ৩/৪ টি
  3. দারুচিনি ৫ সেন্টি মিটারের মতো
  4. লং – ৭/৮ টি
  5. গোল মরিচ – ৭/৮ টি
  6. শাহী জিরা – ১ চা চামুচ (বেশী দিলে ভালো লাগবেনা)
  7. গোটা ধনিয়া – আধা চা চামুচ
  8. মৌরি – আধা চা চামুচ

গরম মশলা তৈরীর জন্য সব একসাথে গরম তাওয়ায় হালকা টেলে নিয়ে গুঁড়ো করেছি। তবে বাজার থেকে ভালো ব্র্যান্ডের রেডিমেড গরম মশলার গুঁড়িও ব্যবহার করা যাবে।

ভর্তা ভালো লাগেনা এরকম বাঙ্গালী মনেহয়না পাওয়া যাবে। এখন তৈরী করছি মুসুর ডালের ভর্তা ৯৯% বাংলাদেশী স্টাইলে। ১% কম কেনো? কারণ গ্রামে মরিচটা চুলোর খড়ির কয়লার আগুনে পুড়ে যেটা শহরে উপলব্ধ নয় 🙂 তাই বলে কি ভর্তা খাওয়া বন্ধ থাকবে? এক্কেবারেই না, চলুন দেখি মুসুর ডাল ভর্তা তৈরীর রেসিপি –

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

মসুর ডালের ভর্তা তৈরীতে যা যা লাগছে:

  1. আধা কাপ মসুর ডাল
  2. বড় রসুনের কোয়া ৩ টি
  3. শুকনো মরিচ ৬ টি
  4. পেঁয়াজ ২ টি
  5. সরিষার তেল ১ চা চামুচ
  6. লবণ আন্দাজ মতো
  7. হলুদের গুঁড়ি আধা চা চামুচের একটু কম
  8. রান্নার তেল ২ টেবিল চামুচ
  9. ধনে পাতা প্রয়োজন মতো

টমেটো শীতকালীন শবজি হলেও গৃষ্মকালে টমেটোর ডাল (অনেক জায়গায় এটাকে টমেটোর খাটা বলে থাকে) খেতে ভালো লাগে। বিশেষ করে যারা রোদে ঘোরাফেরা করেন, এই ডাল তাদের জন্য ভীষণ উপকারী। চলুন টমেটোর ডাল রান্নার পদ্ধতি শিখেনি।

চাইলে এই লিঙ্ক থেকে ইউটিউবেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে যা যা লাগছে –

  1. টমেটো – ৪ টি
  2. পেঁয়াজ – ২ টি
  3. শুকনো মরিচ – ৪/৫ টি
  4. কাঁচা মরিচ – ৭/৮ টি
  5. পাঁচ ফোঁড়ন
  6. ধনে গুঁড়ি
  7. রসূন বাটা
  8. আদা বাটা
  9. বসূন কুঁচি
  10. লবণ
  11. তেঁজপাতা
  12. তেল

কোনো প্রশ্ন থাকলে বা কেমন লাগলো অনুগ্রহ করে মন্তব্যে জানাবেন।

ভাত দিয়ে খাবার জন্য আলুর ডাল খুব ভালো একটা তরকারি। সাথে কয়েকটা ডিম দিয়ে দিলে আমিষের চাহিদাটাও পূর্ণ হয়ে যায়। দেখে

চাইলে এই লিঙ্ক থেকে ইউটিউবেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে যা যা লাগছে-

  1. আলু
  2. ডিম
  3. টমেটো
  4. পেঁয়াজ
  5. লবণ
  6. হলুদের গুঁড়ি
  7. ধনে গুঁড়ি
  8. ভাজা জিরার গুঁড়ি
  9. আদা বাটা
  10. রসূন বাটা
  11. জিরা
  12. তেল
  13. কাঁচা মরিচ

কোনো প্রশ্ন থাকলে বা কেমন লাগলো অনুগ্রহ করে মন্তব্যে জানাবেন।

“মাছ ভাতে বাঙ্গালী” কথাটা প্রচলিত হলেও ভাতের সাথে একটু ডাল পছন্দ করেননা এরকম কাউকে পাওয়া কঠিন হবে। মুসুর ডাল রান্নাটি যে কত সহজ হতে পারে, না রাঁধলে বোঝা যাবেনা। চলুন দেখি মুসুর ডাল রান্নার প্রক্রিয়া-

চাইলে এই লিঙ্ক থেকে ইউটিউবেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে যা যা লাগছে-

  1. মুসুর ডাল
  2. পেঁয়াজ
  3. রসূন বাটা
  4. আদা বাটা
  5. লবণ
  6. তেঁজ পাতা
  7. ধনে গুঁড়ি
  8. হলুদের গুঁড়ি
  9. রসূন
  10. পাঁচ ফোঁড়ন
  11. তেল
  12. ধনে পাতা
  13. কাঁচামরিচ

কোনো প্রশ্ন থাকলে বা কেমন লাগলো অনুগ্রহ করে মন্তব্যে জানাবেন।

মুগডাল দিয়ে কলিজা ভীষন সুন্দর একটা সাইড ডিস। সকাল অথবা সন্ধ্যার নাশতায় রুটি বা পড়টা দিয়ে খুব ভালো লাগে। এখন দেখাচ্ছি মুগডাল দিয়ে কলিজা রান্নার প্রক্রিয়া।

ওপরের ভিডিওটি দেখতে সমস্যা হলে ডেইলিমোশনের এই লিঙ্কে গিয়েও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরীতে যা যা লাগছে –

  1. মুগ ডাল – ১ কাপ
  2. কলিজা – ২০০ গ্রাম
  3. তেজপাতা – ২টি
  4. বড় এলাচ – ২টি
  5. ছোট এলাচ – ৫/৬টি
  6. গোলমরিচ – ৬/৭টি
  7. লং – ৫/৬টি
  8. দারুচিনি – ছোট ২টুকরো
  9. পেঁয়াজ – ৩টি
  10. কাঁচা মরিচ – ৪/৫টি
  11. আদা বাটা – ১ চা চামুচ
  12. রসূন বাটা – ১ চা চামুচ
  13. মরিচের গুঁড়ি – ১ চা চামুচ
  14. ধনে  গুঁড়ি – ১ চা চামুচ
  15. লবণ
  16. হলুদের  গুঁড়ি – আধা চা চামুচ
  17. জিরা সহ গরম মসলার গুঁড়ি – ১ চা চামুচ
  18. তেল

কোনো প্রশ্ন থাকলে বা কেমন লাগলো অনুগ্রহ করে মন্তব্যে জানাবেন।