Tagged: মাছ

“মাছে ভাতে বাঙ্গালী”

সাদা ভাত, মাছের তরকারি আর সাথে একটা ভর্তা। আমার মনে হয়না বাঙ্গালীদের এর চাইতে ভালো কিছু খেতে দিয়ে ইম্প্রেস করা সম্ভব। আমার চ্যানেলে আমি বরাবরই ট্রেডিশনাল রেসিপিগুলি তুলে ধরার চেষ্টা করছি এবং তারই ধারাবাহিকতায় এখন দেখাচ্ছি দেশীয় হোটেল স্টাইলে ফিশ কারি রেসিপি।

ফিশ কারি তৈরী করার পদ্ধতি দেখি:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে যা যা লাগছে (আমি এখানে ৫০০ গ্রাম ওজনের দু’টি রূপচাঁদা মাছ নিয়েছি, এবং সেই অনুপাতে সমস্থ উপকরণ দিয়েছি। আপনারা যে মাছ দিয়েই এই রান্নাটি করেন, উপকরণগুলির পরিমাণ এরকমই থাকবে):

  1. মাছ ৫০০ গ্রাম
  2.  মাছ ৫০০ গ্রাম
  3. শুকনো মরিচের গুঁড়ি
    • মাছ ভাজতে ০.৫ চা চামুচ
    • মাছ রান্না করতে ১ চা চামুচ
  4. হলুদের গুঁড়ি
    • চিমটি পরিমাণ মাছ ভাজতে
    • চিমটি পরিমাণ মাছ রান্না করতে
  5. ধনে গুঁড়ি
    • ০.৫ চা চামুচ মাছ ভাজতে
    • মাছ রান্না করতে ১ চা চামুচ
  6. লবণ
    • মাছ ভাজতে ০.৫ চা চামুচ
    • মাছ রান্না করতে ১ চা চামুচ
  7. রসুন বাটা
    • মাছ ভাজতে ০.৫ চা চামুচ
    • মাছ রান্না করতে ১ চা চামুচ
  8. আদা বাটা
    • মাছ ভাজতে ০.৫ চা চামুচ
    • মাছ রান্না করতে ০.৫ চা চামুচ
  9. তেল
    • ০.৫ কাপ মাছ ভাজতে
    • মাছ রান্না করতে ০.৫ কাপ
  10. পেঁয়াজ কুচি ১.৫ কাপ
  11. গোটা জিরা ১ চা চামুচ
  12. টমেটো ০.৫ কাপ
  13. কাঁচা মরিচ ৫/৬ টি
  14. ভাজা জিরা গুঁড়ি ১ চা চামুচ

তৈরী করে আমাদের ফেসবুক পেজ আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে ভুলবেন না।

আমার চ্যানেলে সবসময়ই হালকা নাশতা টাইপের রেসিপির একটা আলাদা চাহিদা রয়েছে। আর আমি তাই চেষ্টা করি কিভাবে স্বাস্থ্য সম্মত উপায়ে হালকা নাশতার রেসিপি উপস্থাপন করা যায়, বিশেষ করে শিশুদের কথা চিন্তা করে। তৈরী করে দেখাচ্ছি শ্রিম্প কেক। অ্যাপাটাইজার বলেন, বা বার্গারের প্যাটি বলেন যেভাবেই খেতে চান, এই শ্রিম্প কেকের জুড়ি নেই।

ক্রিম চিজ তৈরী করার পদ্ধতি দেখি:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে লেগেছে –

  1. চিংড়ি মাছ ৫০০ গ্রাম
  2. ডিমের কুসুম ১ টি
  3. কর্ণ ফ্লাওয়ার ২ টেবিল চামুচ
  4. সয় সস ১ চা চামুচ
  5. ফিস সস ২ চা চামুচ
  6. চিনি ১ চা চামুচ
  7. গোল মরিচের গুঁড়ি ১ চা চামুচ
  8. কাঁচা মরিচ ২ টি
  9. পুদিনা পাতা ১ টেবিল চামুচ
  10. রসুন ৩/৪ কোয়া

তৈরী করে আমাদের ফেসবুক পেজ আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে ভুলবেন না।

আমরা অনেকভাবে মাছ রান্না করি, কিন্তু মাছের কাবাবের চলটা আমাদের দেশে তেমন না হলেও সারা পৃথিবীতে মাছ দিয়ে তৈরী কাবাবের ভীষণ কদর রয়েছে। আর সেরকম কাবাব টাইপেরই একটা ডিস হলো ফিস স্টেক। পশ্চিমের দেশগুলিতে ফিশ স্টেক ভীষণ জনপ্রিয় এবং তৈরি কারও যায় ঝামেলা ছাড়া খুবই অল্প প্রিপারেশনে।

পিঠা তৈরী করার পদ্ধতি দেখি:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে যা যা লাগছে…
– কাঁটা ছাড়া মাছ ৫০০ গ্রাম (আমি স্যামন মাছ নিয়েছি)
– সয় সস ২ টেবিল চামুচ
– ফিশ সস ২ চা চামুচ (না থাকলে ১ চা চামুচ লবণ দিয়ে দেবেন)
– গোল মরিচের গুঁড়ি: ১ চা চামুচ মাছ মেরিনেশনে, ময়দার মধ্যে ০.৫ চা চামুচ
– লেবুর রস ১ টেবিল চামুচ
– ময়দা ০.৫ কাপ
– লবণ ১ চিমটি

তৈরী করে আমাদের ফেসবুক পেজ আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে ভুলবেন না।

আমার মাছের রেসিপি কম বলে আমার অনেক দর্শক অভিযোগ করেন। তাই আজকে একটা ঝটপট রেসিপি নিয়ে হাজির হলে রূপচাঁদা মাছ ফ্রাই। আমি আশা করছি সাধারণ দর্শকদের পাশাপাশি এই রেসিপিটি আমার ব্যাচেলার দর্শকদের অনেক কাজে দেবে।

রূপচাঁদা মাাছ ফ্রাই করার পদ্ধতি দেখি:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

রূপচাঁদা মাাছ ফ্রাই করতে লাগছে

  1. মাঝারি আকারের রূপচাঁদা মাছ ২ টি
  2. শুকনো মরিচের গুঁড়ি ০.৫ চা চামুচ
  3. হলুদের গুঁড়ি ০.২৫ চা চামুচ
  4. ধনে গুঁড়ি ০.৫ চা চামুচ
  5. লবণ ০.৫ চা চামুচ
  6. রসুন বাটা ০.৫ চা চামুচ
  7. আদা বাটা ০.৫ চা চামুচ
  8. রান্নার তেল ০.৫ কাপ
  9. পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ
  10. ৫/৬ টি কাঁচা মরিচ

তৈরী করে আমাদের ফেসবুক পেজে আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে ভুলবেন না।

পশ্চিম বিশ্বের পাশাপাশি পিৎজা আমাদের দেশেও ভালো কদর পেয়েছে। আর সেই পিৎজা খেতে যদি রেস্টুরেন্টে যেতে না হয়, তাহলেতো মনেহয় সোনায় সোহাগা। পিৎজা তৈরী করা অনেকেই অনেক কঠিন মনে করে থাকেন। এটা ঠিক যে রেস্টুরেন্টের বড় বড় ওভেনে যে পিৎজা সেটা হয়তো বাসায় সহজে তৈরী করা যাবেনা। তবে আমরা বাসায় যেটা করতে পারি, সেটাইবা কম কিসের! বিশ্বাস হলোনা?

তৈরীর প্রণালীটি দেখলে বিশ্বাস হবে:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

টুনা মাছের পিৎজা তৈরী করতে যা যা লেগেছে…

  1. ময়দা ২ কাপ
  2. টুনা মাছ ১ ক্যান (প্রায় ২০০ গ্রাম)
  3. চিনি ১ চা চামুচ
  4. লবণ ১ চা চামুচ
  5. ইস্ট ১ চা চামুচ
  6. ডিম ১ টি
  7. অলিভ ওয়েল
    1. আটা খামীর করতে ২ টেবিল চামুচ
    2. বিভিন্ন সময় প্রয়োজন মতো
  8. ১টা গোটা রসুনের কুঁচি
  9. টমেটো পিউরি ৪ টেবিল চামুচ
  10. মোজারেলা চিয ২০০ গ্রাম
  11. ক্যাপসিকাম প্রয়োজন মতো
  12. পেঁয়াজ প্রয়োজন মতো
  13. গোল মরিচের গুঁড়ি প্রয়োজন মতো
  14. পাপড়িকা পাউডার প্রয়োজন মতো

আরেকটা কথা। আমি যে টমেটো পিউরি দিয়েছি, আপনাদের হাতের কাছে না থাকলে টমেটো সস বা চিলি সস ব্যবহার করতে পারেন। ভিডিওতে যেরকম বলেছি যে এটার টপিং-এর বাঁধা ধরা সেরকম কোনো নিয়ম নেই, তাই আপনাদের যেরকম ভালো লাগে সেরকম করে তৈরী করুন। 🙂

ভালো খাবার খাওয়ার জন্য বাঙালীর বিশেষ দিনক্ষণ লাগেনা। আমাদের দেশে ইলিশ মাছ এবং ইলিশ মাছ দিয়ে তৈরী রেসিপির সম্ভবত শেষ নেই! আর আমি এবার তৈরী করেছি ইলিশ পোলাও। বলা হয়ে থাকে আমাদের উপমহাদেশের খাবার-দাবার বেশীরভাগ আসে মুঘলদের কাছ থেকে। সত্যই যদি তাই হয়, তাহলে সম্ভবত ইলিশ পোলাওটা মুঘলদের রেসিপিকে বাঙালীরা রিমিক্স করেছে। যেটা যেভাবেই আসুক আর যে যাই করুক, ভালো খাওয়া নিয়ে কথা!

চলুন কথা না বাড়িয়ে রেসিপিটি তৈরীর প্রণালী দেখি-

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

ইলিশ মাছ রান্নায় লেগেছে:

  1. ইলিশ মাছ – ৬ টুকরো
  2. টক দৈ – আধা কাপ
  3. আধা কাপ বেরেস্তার জন্য প্রয়োজন মতো পেয়াঁজ
  4. কাঁচা মরিচ – ৪ টি
  5. কাঁচা মরিচ বাটা – ১ চা চামুচ
  6. রসুন বাটা – ১ চা চামুচ
  7. জিরা বাটা – ১ চা চামুচ
  8. লবণ – প্রয়োজন মতো (আমি ১ চা চামুচ দিয়েছি)
  9. চিনি – আধা চা চামুচ
  10. রান্নার তেল – ৪ টেবিল চামুচ

পোলাও তৈরীতে লেগেছে:

  1. সুগন্ধী পোলাওর চাল – ২ কাপ
  2. কালো গোল মরিচ – ৮/১০ টি
  3. লবঙ্গ – ৪/৫ টি
  4. দারুচিনি – প্রায় ৪ ইঞ্চি
  5. ছোটো এলাচ – ৩/৪ টি
  6. তেঁজ পাতা – ২টি
  7. পেঁয়াজ কুঁচি – আধা কাপ
  8. আদা বাটা – ১ চা চামুচ
  9. রসুন বাটা – ১ চা চামুচ
  10. লবণ – স্বাদ অনুযায়ী (আমি ১ চা চামুচ দিয়েছি)
  11. কাঁচা মরিচ – ৫/৬ টি
  12. রান্নার তেল – ৪/৫ টেবিল চামুচ

এই শীতে ফ্রেশ ফ্রেশ সবজি পাচ্ছি আর ফ্রেশ ফেশ সালাদ তৈরী করছি। আমি কিন্তু আপনাদের সাথে শেয়ার না করে কিছু করিনা আর তাই শেয়ার করছি টুনা মাছ দিয়ে সালাদের রেসিপি:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

টুনা সালাদ তৈরী করতে যা যা লাগছে…

  1. টুনা মাছ ১ ক্যান
  2. মূলা ৪ ভাগের ১ ভাগ
  3. গাজর ১ টি
  4. শসা ৪ ভাগের ১ ভাগ
  5. টমেটো
    1. কাঁচা ১ টি
    2. পাকা ১ টি
  6. বাঁধা কপি ১০০ গ্রাম
  7. নতুন পেঁয়াজ ২ টি
  8. লেটুস পাতা ৪ টি
  9. পেঁয়াজ কলি ৩ টি
  10. মেয়নিজ ১ টেবিল চামুচ
  11. মালটা অর্ধেকটি
  12. মরিচ ৪/৫ টি
  13. ক্যাপসিকাম ৪ ভাগের ১ ভাগ
  14. লবণ স্বাদ অনুয়ায়ী
  15. গোল মরিচ স্বাদ অনুয়ায়ী

আমার মনেহয় বাঙ্গালীর শিরায় শিরায় ঢুকে আছে ভর্তা প্রীতি। মাছ ভর্তা, শুঁটকি ভর্তা, শাক ভর্তা, মাংস ভর্তা, কোন জিনিসটার ভর্তা খাইনা আমরা! আমার ভর্তা পর্বে এখন দেখাচ্ছা মাছ ভর্তা।

চলুন দেখি বাংলাদেশী স্টাইলে মাছ ভর্তা তৈরীর ভিডিও:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

সম্পুর্ণ প্রসেসে আমি মাছ ভেজে ভর্তা করে দেখিয়েছি, তবে আপনারা রান্না করা মাছ দিয়েও একই স্বাদের ভর্তা তৈরী করতে পারেন।

মাছ ভর্তা তৈরী করতে যা যা লাগছে…

  1. মাছ – ২ টুকড়ো (২৫ গ্রাম)
  2. লবণ – মোট ১ চা চামুচ
    1. আধা চা চামুচ মাছ মাখার সময় আর
    2. আধা চা চামুচ ভর্তা করার সময়
  3. হলুদের গুঁড়ি – আধা চা চামুচের একটু কম
  4. শুকনো মরিচের গুঁড়ি – আধা চা চামুচ
  5. রান্নার তেল – মোট ৬ টেবিল চামুচ
    1. মাছ ভাজার সময় ৩ টেবিল চামুচ আর
    2. পরবর্তি প্রক্রিয়ায় ৩ টেবিল চামুচ
  6. শুকনো মরিচ – ৫ টি
  7. ৪ টা বড় আকারের পেঁয়াজ
  8. রসুন – ১ টি
  9. আদা কুঁচি – ১৫ গ্রাম
  10. সরিষার তেল – মোট ১.৫ চা চামুচ
  11. ধনে পাতা – আন্দাজ মতো

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী চালতা দিয়ে মাছ তৈরী করেছিলাম। তৈরীর প্রণালীটি ভিডিওতে দেখুন:

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরী করতে যা যা লাগছে…

  1. চালতা ১ টা
  2. যে কোনো মাছ ৫০০ গ্রাম পরিমান (আমি এখানে প্রায় ২৫০ গ্রামের দু’টো মাছ নিয়েছি)
  3. রান্নার তেল ৫ টেবিল চামুচ
  4. মাঝারি আকারের পেঁয়াজ ২টি
  5. রসুন বাটা ১ চা চামুচ
  6. আদা বাটা আধা চা চামুচ
  7. শুকনো মরিচের গুঁড়ি ১ চা চামুচ
  8. ধনে গুঁড়ি ১ চা চামুচ
  9. হলুদের গুঁড়ি আধা চা চামুচের একটু কম
  10. জিরা গুঁড়ি আধা চা চামুচ
  11. স্বাদ অনুযায়ী লবণ
  12. রসুন ১ টা
  13. ৫ টা কাঁচা মরিচ

টুনা আমাদের দেশী মাছ না হলেও আমার অনেক দর্শক বন্ধু টুনা মাছ দিয়ে বিভিন্ন রেসিপির রিকোয়েস্ট করেছে। টুনা দিয়ে সহজ কিছু করে দেখানোর ইচ্ছা আছে, আর তারই প্রথম কিস্তি টুনা মাছের কাবাব। চপের মতো এই কাবাবটি বেশ সহজে তৈরী করা যায় এবং মূল খাবারের সাইড ডিস, অ্যাপেটাইজার হিসেবে বা বাচ্চার স্কুলের টিফিন হিসেবে একটা সুন্দর আইটেম। চলুন ভিডিওতে দেখা তৈরীর প্রক্রিয়া –

ইউটিউবে ভিডিও দেখতে সমস্যা হলে এই লিঙ্ক থেকে ডেইলি মোশনেও ভিডিওটি দেখতে পারেন।

তৈরীতে যা যা লেগছে:

  1. ২০০ গ্রাম টুনা মাছ
  2. প্রায় ২৫০ গ্রাম মাঝারি আকারের আলু
  3. ২ পিস পাউরুটি
  4. ১টি ডিম
  5. ১টি মাঝারি আকারের পেঁয়াজ
  6. স্বাদ অনুয়ায়ী কাঁচা মরিচ
  7. স্বাদ অনুয়ায়ী ধনে পাতা
  8. স্বাদ অনুয়ায়ী পুদিনা পাতা
  9. আধা চা চামুচ গরম মশলার গুঁড়ি
  10. আধা চা চামুচ ভাজা জিরার গুঁড়ি
  11. স্বাদ অনুয়ায়ী গোল মরিচের গুঁড়ি
  12. আধা চা চামুচ রসুন বাটা
  13. আধা চা চামুচ আদা বাটা
  14. স্বাদ অনুয়ায়ী লবণ
  15. প্রয়োজন মতো রান্নার তেল