১৮
নভে.

রাঙ্গা বা মিষ্টি আলুর হালুয়া দিয়ে লাড্ডু

মেহমানকে যদি আপ্যায়ন করার সময় চমকে দিতে চান, তাহলে পরিবেশন করুন এই লাড্ডু। দেখে মনে হবে বড় কোনো মিষ্টির দোকান থেকে কিনে আনা প্রিমিয়াম কোয়ালিটির মতিচুরের লাড্ডু, আবার খাওয়ার সময় মনে হবে বুটের ডালের হালুয়ার চাইতেও অনেক বেশী টেস্টি। এখন চলছে মিষ্টি আলুর সিজন, এবং মিষ্টি আলুর মধ্যে রয়েছে অসাধারণ সব পুষ্টিগুণ। এটি আপনার হার্ট ও ত্বকের স্বাস্থ্য উন্নত করে, দৃষ্টিশক্তি সুরক্ষিত রাখে, টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায় এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা থেকে রক্ষা করে। আবার মিষ্টি আলুতে কিন্তু গোল আলুর তুলনায় কম ক্যালরি ও কার্বোহাইড্রেট থাকে, তাই যারা ওজন বেড়ে যাওয়ার ভয়ে সাধারণ আলু খাবারের মেন্যুতে রাখেন না, তারা চোখ বন্ধ করে খেতে পারেন মিষ্টি আলু। এতসব গুণের অসাধারণ এই আলু দিয়ে লাড্ডুটি তৈরী করতে কত সময় লাগবে জানেন? পরিস্কার করা থেকে লাড্ডু বানানো পর্যন্ত খুব বেশী হলে ৪০ মিনিট। আবার তৈরী করে একটা এয়ার টাইট বক্সের মধ্যে ফ্রিজের নরমাল পার্টে রেখে দিতে পারেন অন্তত ১ মাস। আমাদের এলাকায় আবার মিষ্টি আলুকে রাঙ্গা আলু বলে। এই শীতে ঠাণ্ডা, জ্বর থেকে বাঁচতে নিয়মিত খেতে পারেন মিষ্টি আলু। কারণ এতে থাকা ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ত্বক ও চুল ভালো রাখতে চাইলে নিয়মিত মিষ্টি আলু খাওয়ার বিকল্প নেই।

তৈরী করতে লাগছে –

  1. মিষ্টি আলু ০.৫ কেজি
  2. ঘি
    • শুরুতে ০.৫ কাপ
    • শেষে ২ টেবিল চামুচ
  3. দুধ ১ কাপ
  4. গুঁড়ো দুধ ০.৫ কাপ
  5. চিনি ১ কাপ
  6. এলাচ ৪ টি
  7. দারুচিনি ২ টুকরো
  8. তেজ পাতা ২ টি
  9. কোরানো নারিকেল ০.৫ কাপ
  10. বাদাম কুচি ১ টেবিল চামুচ
  11. কিসমিস ২ টেবিল চামুচ

➡ চটপট মিহি করে আলু ভর্তা/ম্যাশ করতে শিখতে এই ভিডিওটি দেখুন

মিষ্টি আলুর পুষ্টি উপকারিতা কী?

  • মিষ্টি আলুতে উচ্চ মাত্রায় ‘ভিটামিন এ’ থাকে। ‘ভিটামিন এ’ হচ্ছে একটি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, যা ইমিউনিটি বৃদ্ধি করে এবং সুস্থ ত্বক ও দৃষ্টি বজায় রাখতে সাহায্য করে।
  • একটি মিষ্টি আলু আপনাকে দৈনিক সুপারিশকৃত ১০০ শতাংশের বেশি ভিটামিন এ সরবরাহ করে, ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অব অ্যাগ্রিকালচার অনুসারে।
  • মিষ্টি আলুতে প্রচুর ভিটামিন সি ও ভিটামিন বি৬ থাকে, যা মস্তিষ্ক ও স্নায়ুতন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।
  • এটি পটাশিয়াম ও ম্যাগনেসিয়ামেরও ভালো উৎস, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রেখে হার্টের স্বাস্থ্য উন্নত করতে সাহায্য করে।
  • একটি মিষ্টি আলুতে প্রায় চার গ্রাম উদ্ভিজ্জ ফাইবার রয়েছে, যা আপনাকে স্বাস্থ্যসম্মত ওজন বজায় রাখতে সাহায্য করে এবং ক্রনিক রোগের ঝুঁকি কমায়, যেমন- টাইপ ২ ডায়াবেটিস ও উচ্চ কোলেস্টেরল।
  • মিষ্টি আলুতে রয়েছে প্রচুর ফাইবার যা অতিরিক্ত খাওয়ার ইচ্ছাকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। ফলে ওজন বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনাই থাকে না।
  • মিষ্টি আলু হজমশক্তি অর্থাৎ মেটাবলিজম বাড়াতে সাহায্য করে, ফলে খাওয়া ভালোভাবে হজম হয়। গ্যাসের সমস্যা বা পেটের সমস্যা হয় না।
  • শরীরে জমে থাকা অতিরিক্ত পানি শোষণ করতে সক্ষম মিষ্টি আলু। অনেকের ওজন বেশি থাকে এই অতিরিক্ত পানির কারণেই।
  • শরীরে শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে মিষ্টি আলু। ফলে এক্সাসাইজ করার ইচ্ছা ও ক্ষমতা বজায় থাকে। এটি খেলে ক্লান্তিভাব আসে না সারাদিনে।
  • শরীরের প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে মিষ্টি আলু। কারণ এতে ক্যাটালেস ধরনের অ্যান্টিঅক্সাইডের পরিমাণ বেশি। এছাড়াও রয়েছে জিঙ্ক সুপারঅক্সাইড, স্পোরামিন।
  • বেটা-ক্যারোটিন সমৃদ্ধ মিষ্টি আলুতে রয়েছে ভিটামিন সি যা শরীরে বলিরেখা পড়তে দেয় না সহজে।
  • যেসব রক্তকোষ অক্সিজেন বহন করে, তাদের কর্মক্ষমতা বাড়ায় আয়রন সমৃদ্ধ মিষ্টি আলু।

তৈরী করার অভিজ্ঞতা আমাদের ফেসবুক গ্রুপে শেয়ার করতে ভুলবেন না। শেয়ার করে আপনিও জিতে নিতে পারেন একটি সুন্দর উপহার।